Friday, 11 May 2012

রেগে গেলেন তো হেরে গেলেন

এক  ধনকুবেরের একমাত্র সুন্দরী মেয়ে মেয়ের ছেলেবন্ধুর কোনো অভাব নেই অভাব থাকার কথাও নয় কারণ, একে তো সুন্দরী, তারপর ধনকুবেরের মেয়ে মেয়ের যখন বিয়ের বয়স হলো, বাবা তাকে বললেন,
এখন তো তোমাকে সিদ্ধান্ত নিতে হবে। বলো, তোমার কাকে পছন্দ? যাকে পছন্দ তার সঙ্গেই তোমার বিয়ের ব্যবস্থা করব।
মেয়ে পছন্দ প্রকাশে অপারগতার কথা জানাল। বলল, আমি কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারছি না। কারণ, সবাই বলে তারা আমাকে ভালোবাসে। আমার জন্য প্রয়োজনে জান দিয়ে দেবে। বাবা চিন্তায় পড়ে গেলেন। কী করা যায় ভাবতে ভাবতে বুদ্ধি বেরিয়ে এল। মেয়ের সঙ্গে আলাপ করে বাবা সিদ্ধান্ত ঘোষণা করলেন, প্রতিযোগিতা হবে। প্রতিযোগিতায় যে প্রথম হবে, তাকেই মেয়ে বিয়ে করবে। প্রতিযোগিতার দিন দেখা গেল শতাধিক যুবক সুন্দর পোশাকে পরিপাটি অবস্থায় ধনকুবেরের বাড়িতে এসে উপস্থিত। ধনকুবের সবাইকে বাড়ির সুইমিংপুলে নিয়ে গেলেন। সুইমিংপুলের পাশে সবাইকে দাঁড় করিয়ে বললেন, দেখো, প্রতিযোগিতা খুব সহজ। সাঁতার প্রতিযোগিতা হবে। সাঁতারে যে প্রথম হবে, তার সঙ্গেই আমার মেয়ের বিয়ে দেব। তবে সুইমিংপুলে ঝাঁপ দেওয়ার আগে ভালো করে খেয়াল করো। জলের নিচে বহু কুমির অপেক্ষা করছে। আর এই কুমিরগুলোকে এক মাস ধরে কোনো খাবার দেওয়া হয়নি। ধনকুবেরের কথা শেষ হতে না হতেই দেখা গেল, এক যুবক জলেতে পড়ে চোখ বন্ধ করে দুই হাত-পা নাড়ছে। কুমিররা কিছু বুঝে ওঠার আগেই সেই যুবক ভাগ্যক্রমে কিছুক্ষণের মধ্যেই সুইমিংপুলের ওপারে গিয়ে উঠেছে। ঘটনার আকস্মিকতায় সবাই হতবাক। বিস্ময়ের ঘোর কাটতেই ধনকুবেরের মেয়ে দৌড়ে গিয়ে জড়িয়ে ধরল যুবককে।
বিস্ময়াবিষ্ট কণ্ঠে বলল, তোমার মতো বীরকেই আমি চাইছিলাম। একমাত্র তুমিই আমার স্বামী হওয়ার উপযুক্ত।
এদিকে যুবকের রাগ তখনো থামেনি। উত্তেজনায় হাত-পা কাঁপছে। এক ঝটকায় মেয়েটিকে দূরে ঠেলে দিয়ে যুবক চিকার করে উঠল, ‘কোনহারামজাদা আমাকে ধাক্কা দিয়ে জলেতে ফেলে দিয়েছিল, তাকে আগে দেখে নিই।
সুন্দরী স্ত্রী ধনকুবেরের সম্পদ ওই যুবকের হাতের মুঠোয় চলে এসেছিল। ধাক্কা যে- দিক, সে সুইমিংপুল অতিক্রম করে সবার চোখে বিজয়ী বীর বলে গণ্য হয়েছিল, কিন্তু শুধু রাগ নিয়ন্ত্রণ করতে না পারায় সৌভাগ্য এসেও তা হাতের নাগালের বাইরে চলে গেল। অথচ রাগ দমন করতে পারলে, ঠান্ডা মাথায় পরিস্থিতি অনুসারে সিদ্ধান্ত নিতে পারলে সে অনায়াসে মুচকি হেসে বলতে পারত, ‘পুরুষ তো আমি একাই, ওরা আবার পুরুষ নাকি!’

বি. দ্র.: নিজের জীবন অনুসন্ধান করলেও আপনি হয়তো দেখতে পাবেন অনেক সুযোগ নষ্টের পেছনে রয়েছে আপনার রাগ, ক্ষোভ অভিমান। তাই সব সময় স্মরণ রাখুনরেগে গেলেন তো হেরে গেলেন
[কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশনের সৌজন্যে]

No comments:

Post a Comment